আজ

  • বৃহস্পতিবার
  • ৩রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
  • ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

খালেদা জিয়ার নির্বাচনী এলাকা ফেনী ১ আসনে তৃনমূল পূনর্গঠনে সমন্বয়কের দায়িত্বে রফিকুল আলম মজনু

আপডেট : অক্টোবর, ১০, ২০১৮, ১২:১০ অপরাহ্ণ


সালাহ্উদ্দিন মজুমদার>>>>
রফিকুল আলম মজনু। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সভাপতি। রাজধানীর রাজপথে আন্দোলন-সংগ্রামে সামনের সারির এ যুবনেতা এখন ফেনীর বিএনপির রাজনীতিতে সক্রিয়।
সূত্রমতে, খালেদা জিয়ার নির্বাচনী এলাকা ফেনী-১ আসন তথা ছাগলনাইয়া, ফুলগাজী ও পুরশুরাম এলাকার তৃনমূল পূনর্গঠন সমন্নয় করতে দল থেকে দায়িত্ব পেয়েছেন। দলটির ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান তাকে এ দায়িত্ব দেন বলে জানা গেছে।

দলীয় সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন ধরে দলের রাজধানী কেন্দ্রিক বিভিন্ন সংগঠনে জড়িত থাকা মজনু ইদানীং জেলার রাজনীতিতে সক্রিয় হচ্ছেন। জেলার বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের কমিটিও হচ্ছে তাকে ঘিরে। দলের ভ্যানগার্ড খ্যাত যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক ও ছাত্রদলের কমিটি গঠনেও উল্লেখযোগ্য প্রভাব তার। বিএনপির চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের অনুসারী হিসেবে পরিচিত এ নেতার কাছে যাতায়াত জেলার বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের।

ছাত্রজীবনে ছাত্রদলের রাজনীতিতে সক্রিয় হন মজনু। নটর ডেম কলেজে পড়াকালীন তৎকালীন ৩৪ নং ওয়ার্ড (শাহজাহানপুর) ছাত্রদলের সভাপতি ছিলেন। ১৯৯৩ থেকে ৯৭ সাল পর্যন্ত ছিলেন মতিঝিল থানা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র থাকা কালে ২০০১ সালে মহানগর ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক, ২০০৩ সালে সাধারণ সম্পাদক ও ২০০৭ সালে সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। একই সঙ্গে কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহ-সভাপতিও হন তিনি।
এর আগে মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল ও সাইফুল আলম নীরবের নেতৃত্বাধীন যুবদলের মহানগর দক্ষিণ কমিটির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন মজনু।
ঢাকার রাজপথে দলীয় কর্মসূচি ও আন্দোলন-সংগ্রামের সামনের সারির এই নেতা বর্তমান সরকারের দুই মেয়াদে শতাধিক মামলার শিকার ও পাঁচবার কারাবরণ করেন।
নেতাকর্মীদের অনেকে জানান, ফেনীর হারানো আসনগুলো পুনরুদ্ধার করার জন্য আগামী নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছেনও তিনি। এখন মাঠ গোছাচ্ছেন। বিএনপির সহযোগী সংগঠনগুলোর কমিটিও সাজিয়েছেন সেভাবে। নির্বাচনে জয়ী হতে মজনুর মতো তরুণ নেতাদের প্রয়োজন বলে মনে করেন তারা।
তারা আরও জানান, দলের আন্দোলন-সংগ্রাম আর নেতাকর্মীদের পাশে থাকেন এমন নেতারা মনোনয়ন পেলে তৃণমূল উজ্জীবিত হবে।