আজ

  • বুধবার
  • ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • ৭ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ফেনী ২ আসনের বি এন পি প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা ভি পি জয়নাল নিজ বাড়ীতে অবরুদ্ধ দাবী করে সংবাদ সম্মেলন

আপডেট : ডিসেম্বর, ১, ২০১৮, ৬:৩৬ অপরাহ্ণ


সালাহ উদ্দিন মজুমদার>>>
ফেনী -২ আসনে বিএনপি’র প্রার্থী, মু্ক্তিযোদ্ধা, সাবেক সাংসদ অধ্যাপক জয়নাল আবেদীন ভিপি নিজেক স্বপরিবারে অবরুদ্ধ দাবি করে নির্বাচন কমিশনের হস্তক্ষেপ কামনা করে সংবাদ সম্মেলন করেছেন। শনিবার বিকালে তার ফলেশ্বরস্থ বাসভবনে সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করেন, তাকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে অজ্ঞাত নাম্বার থেকে সন্ত্রাসিরা অব্যাহত প্রাণ নাশের হুমকি দিচ্ছে। বিরিঞ্চির আবুল কালামের নেতৃত্বে আ’লীগ ও সহযোগি সংগঠনের তিন শতাধিক নেতাকর্মী তার বাড়িতে হামলা করেছে। সীমানা প্রচীরে বোমা ও বাড়ি লক্ষ্য করে গুলি বর্ষণ করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। তার বাড়ির চারপাশে সন্ত্রাসিরা পাহারা বসিয়ে তার বাড়িতে আগত নেতাকর্মীদের চরম শারীরিক নির্যাতন চালিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হচ্ছে। শনিবার সকালে তার বাড়িতে আসার পথে ফরহাদ নগর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান বেলায়েত হোসেন বাচ্চু, কাজীর বাগ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান শামছুল হক, শর্শদী ইউনিয়নের ছাত্রদল নেতা তারেক ইকবাল মণি, মো. ইয়াছিন, শাহাদাত হোসেন ও ফতেহপুরের এক বয়োবৃদ্ধ কে মারধর করে সশস্ত্র সন্ত্রাসিরা নির্মম নির্যাতন চালিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে। এছাড়া তার বাড়িতে আগত নেতাকর্মীদের পকেটে থাকা টাকা, হাতঘড়ি ও মোবাইল ফোন ছিনতাই করে নিয়ে যাচ্ছে। সন্ত্রাসিদের হাত থেকে এলাকার দিনমজুরেরাও রেহাই পাচ্ছেনা। এসব হামলা নির্যাতনে নেতৃত্ব দিচ্ছেন, বিরিঞ্চির মফিজুর রহমানের ছেলে আবুল কালাম কে মির্জাফর বলেন কারন কালাম এক সময় তার হাতিয়ার হিসেবে বিএনপিতে কাজ করতেন , জাহিদুল আলম, আজম খান সজিব, আরাফাত, সাদ্দাম, আবদুল হালিম, রফিকুল ইসলাম রুবেল, আবদুল করিম, সুমন, সোনাপুর গ্রামের গণি সহ প্রায় তিনশতাধিক সন্ত্রাসি।

তিনি এসব বিষয়ে সাংসদ নিজাম উদ্দিন হাজারী, জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার সহ আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যদের জানিয়েও কোন প্রতিকার পাননি।
তিনি একজন মু্ক্তিযোদ্ধা হিসেবে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে নির্বাচন কমিশনকে বিষয়গুলো অবহিত করতে চান এবং এসব বিষয়ে নির্বাচন কমিশনে লিখিত অভিযোগও দায়ের করবেন। সন্ত্রাসিদের সশস্ত্র হোন্ডা মহড়া, গুলি ও বোমা বর্ষণে তিনি ও তার পরিবারের সদস্যরা বর্তমানে অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন। নেতাকর্মীরা তার বাড়িতে যেতে পারছেননা। তাই তিনি নেতাকর্মীদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগও করতে পারছেননা।
এসময় তিনি আরো বলেন, জীবন চলে গেলেও তিনি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াবেন না।