আজ

  • বুধবার
  • ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • ৭ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

তেমুহনি নিখোঁজের ৭ দিন পর কিশোর শুভর গলাকাটা লাশ উদ্ধার আটক-৫

আপডেট : এপ্রিল, ৭, ২০১৯, ৩:৫৬ অপরাহ্ণ


স্টাফ রিপোটার>>>>
ফেনী পাঁচগাছিয়া ইউনিয়নের তেমুহনির নিখোঁজের সাতদিন পর আরাফাত হোসেন শুভর (১৩) নামে এক কিশোরের গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করেছে ফেনী মডেল থানা পুলিশ। ৭ এপ্রিল রোববার ভোরে শহরতলীর তেমুহনি বাজার সংলগ্ন মাথিয়ারায় কলা বাগানের একটি ডোবা থেকে তার গলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সিয়াম(১৭) ও সাফায়াত(১৮), রুবেল(৩০),সেলিম (৪৫) সহ ৫ জনকে আটক করেছে। সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিষয়টি মিড়িয়াকে প্রকাশ করবেন পুলিশের উধ্বতন কর্মকর্তা ।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, গত ৩১ মার্চ বিকালে সাইকেল নিয়ে বাজারে গিয়ে নিখোঁজ হয় শুভ। অনেক খোঁজাখুঁজির পরও না পেয়ে স্বজনরা পুলিশকে অবগত করে থানায় জিডি করেন নিহতের মামা জালাল আহম্মদ। পরে আটকৃত একাধিক কিশোরের দেয়া তথ্য মতে রোববার ভোরে তেমুহনি বাজারের একটি দোকান থেকে তার ব্যবহৃত সাইকেল ও পরে ওই দোকানের পেছনের একটি ডোবা থেকে তার গলাকাটা গলিত লাশ পুলিশ উদ্ধার করে ফেনী জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করে।

নিহত আরাফাত হোসেন শুভ পাশ্ববর্তী দক্ষিণ কাশিমপুর গ্রামের সৌদি আরব প্রাবাসী ইমাম হোসেনের ছেলে। দুইভাই ও এক বোনের মধ্যে শুভ সবার বড়। সে তেমুহনী বাজারে অবস্থিত মাদার কেয়ার ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র। এ ঘটনায় নিহতের বাড়িতে শোকে মাতম চলছে।

স্থানীয় পাঁছগাছিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মানিক জানান, ঘটনার সাথে জড়িত যেই হোক না কেন তিনি সুষ্ঠু বিচার দাবী করেন। ফেনী মডেল থানার পরিদর্শক (ওসি) আবুল কালাম আজাদ গলাকাটা লাশ উদ্ধার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ময়না তদন্তের জন্য মরদেহ ফেনী সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। পুলিশ বিষটি তদন্ত করছে।