আজ

  • বৃহস্পতিবার
  • ৩রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
  • ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ছেলেধরা গুজবে’ সাড়া না দিতে ফেনীতে পুলিশের জোর প্রচারণা

আপডেট : জুলাই, ২৫, ২০১৯, ১০:৪২ পূর্বাহ্ণ


স্টাফ রিপোর্টার :
‘গলাকাটা বা ছেলেধরা’ এ জাতীয় গুজবে সাড়া না দিতে স্কুল-কলেজে প্রচারণা নেমেছে পুলিশ। এছাড়া জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে জনসচেতনতামূলক মাইকিংও করা হচ্ছে। গতকাল বুধবার শহরের বিভিন্ন এলাকায় সিএনজি অটোরিক্সা যোগে মাইকিং করা হয়।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বুধবার ফেনী সরকারি কলেজ মিলনায়তন ও সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে প্রচারণা চালানো হয়। শিক্ষার্থীদের বিশেষ দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার খোন্দকার নুরুন্নবী। ছেলেধরা গুজবে কান না দিয়ে কাউকে সন্দেহ হলে গণপিটুনি বা আঘাত না করে পুলিশে ধরিয়ে দেয়া কিংবা ৯৯৯ নাম্বারে কল করতে অনুরোধ জানান পুলিশ সুপার। এসময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কাজী মনিরুজ্জামান, সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর বিমল কান্তি পাল, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) উক্য সিং, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (হেডকোয়ার্টার) মোহাম্মদ রবিউল ইসলাম, পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হোসনে আরা বেগম, ফেনী মডেল থানার ওসি আলমগীর হোসেন, ওসি (তদন্ত) মোহাম্মদ সাজেদুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন। উভয় অনুষ্ঠানে শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রীরা উপস্থিত ছিলেন।
পুলিশ সুপার খোন্দকার নুরুন্নবী শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, এ পর্যন্ত যারা গণপিটুনীতে হতাহত হয়েছেন এদের কেউই ছেলেধরা নয়। অথচ একটি কুচক্রী মহল গুজব রটিয়ে দেশে সুষ্ঠু গণতান্ত্রিক পরিবেশ বিনষ্ট করতে চায়। গণপিটুনী দিয়ে মৃত্যু ঘটানো ও আহত করা গুরুতর ফৌজদারি অপরাধ। গুজবে কান দিয়ে আইন নিজের হাতে তুলে না নিয়ে এ ধরনের কোন তথ্য জানামাত্রই সংশ্লিষ্ট থানায় অবহিত করার জন্য তিনি আহবান জানান। অন্যথা আইন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এ প্রসঙ্গে পুলিশ সুপার ফেনীর সময় কে বলেন, জনসচেতনতার লক্ষ্যে এ প্রচারণা অব্যাহত থাকবে। তিনি বলেন, গুজবরটনকারীদের চিহ্নিত করতে পুলিশ কাজ করছে। ফেসবুকের যেসব আইডি থেকে গুজব ছড়ানো হবে সেসব আইডি সনাক্ত করে তাদের ব্যাপারে সাইবার ক্রাইম অপরাধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। শুধু তাই নয়, যারা এ ধরনের কোন বিভ্রান্তিকর পোস্টে লাইক, কমেন্টস কিংবা শেয়ার করে সাড়া দিবেন তাদের বিরুদ্ধেও আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বার সহ সর্বস্তরের জনপ্রতিনিধিদের কমিউনিটি পুলিশের মাধ্যমে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রচারণা চালানোর জন্য বলা হয়েছে। এছাড়া আগামীকাল শুক্রবার জেলার প্রতিটি মসজিদে জুমার খুতবায়ও ইমামগণ এ ব্যাপারে বক্তব্য রাখবেন।