আজ

  • শুক্রবার
  • ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
  • ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া আড়াই হাজার টাকা না পাওয়ায় ফেনীতে ইউপি সদস্যের উপর হামলা,থানায় মামলা

আপডেট : জুলাই, ১১, ২০২০, ১:২৭ পূর্বাহ্ণ

অফিস ডেস্ক>>>

ফেনী সদর উপজেলার পাঁচগাছিয়ায় সরকার ঘোষিত আড়াই হাজার টাকার তালিকায় নাম না আসায় মহিলা ইউপি সদস্য শিরিনা আক্তারের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে।গত ৮ জুলাই বুধবার দুপুরে স্থানীয় নগরকান্দি গ্রামে এ হামলার ঘটনা ঘটে।
এই ঘটনায় পাঁচগাছিয়া ইউপির মহিলা সদস্য(৪,৫ ও ৬ নং ওয়ার্ড) ও সদর উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক শিরিনা আক্তার শুক্রবার ফেনী মডেল থানায় মামলা (নং-২৮) দায়ের করেছেন।
মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে সরকার ঘোষিত আড়াই হাজার টাকা অনুদানের টাকা পাওয়ার জন্য শিরিনা আক্তার তার ওয়ার্ডের ১০০ জনের নামের তালিকা জমা দেন।সেখান থেকে একই নাম্বার ব্যবহার করে একাধিক আইডি কার্ড জমা দেওয়ায় কয়েকজনের নাম তালিকা থেকে বাদ পড়ে।

তন্মধ্যে ইউনিয়নের নগরকান্দি গ্রামের আব্দুল জব্বারের ছেলে মিজানুর রহমান(৪০) মোঃ বাবুলের ছেলে বাপ্পি (২২) ও মিজানুর রহমানের স্ত্রী রুপা বেগম (৩৫) তালিকায় নাম না আসায় মহিলা ইউপি সদস্য শিরিনা আক্তারকে দোষারোপ করেন।
তালিকায় নাম না আসায় ক্ষুব্দ হয়ে গত ৮ জুলাই বুধবার দুপুরে নগরকান্দি এলাকায় মিজানুর রহমান ও তার স্ত্রী রুপা বেগম অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করার পর কিল ঘুষি ও লাথি মেরে মহিলা মেম্বারকে মারাত্মক আহত করে।এছাড়া বখাটে বাপ্পি অতর্কিতভাবে লাঠি দিয়ে শিরিনা আক্তারকে পিটাতে থাকে। এছাড়া তারা কাপড় নিয়ে টানাহেঁচড়া করে তার শ্লীলতাহানীর চেষ্টা করে। এই সময় তারা শিরিনা আক্তারের ভাই সুমনের উপরও হামলা করে।
যাওয়ার সময় তারা ঘটনাটি কাউকে বললে তাকে সপরিবারে মেরে ফেলার হুমকি দেন।
ঘটনার পর শিরিনা আক্তার ও তার ভাই সুমন হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। এই ঘটনায় মহিলা ইউপি সদস্য শিরিনা আক্তার ফেনী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।মামলা নং-২৮।তারিখ ১০/০৭/২০ইং।

মহিলা মেম্বার শিরিনা আক্তার জানান সন্ত্রাসী মিজান মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত ।তার কারণে এলাকায় যুবক ছেলেরা মাদকের সাথে জড়িয়ে পড়েছে। এতে এলাকা ও সমাজের ক্ষতি হচ্ছে। ইতিপূর্বেও সরকারি উন্নয়ন কাজেও তারা বাধা দিয়েছিল বলে শিরিনা আক্তার জানান।

এ ব্যাপারে পাঁচগাছিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মানিক জানান ঘটনাটি তিনি শুনেছেন। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।
ফেনী মডেল থানার ওসি আলমগীর হোসেন মামলা দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।